July 10, 2020

MIRROR NEWS

re-flexion of truth

বাঁকুড়া তৃণমূলে যোগ হাজার বিজেপি সদস্যের

ফের দল-বদলের সিদ্ধান্ত নিল বঙ্গ বিজেপি’র একাংশ।গত সপ্তাহের শেষেই বাঁকুড়া জেলায়  তৃণমুলে যোগ দিলেন কয়েক হাজার বিজেপি সদস্য।

শনিবার বাঁকুড়া জেলার জয়পুর ব্লকের ন’টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার  বিজেপি ও সিপিআইএম ছেড়ে ৭০০ পরিবারের ২৩০০ জন  যোগ দিলেন তৃণমূলে।এদিন ওই কর্মীদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দিলেন বাঁকুড়া জেলা তৃণমূলের কার্যকরী সভাপতি তথা রাজ্যের প্রতিমন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা।

শ্যামল সাঁতরা জানান, “জয়পুর ব্লকের হেতিয়া, গেলিয়া, অঞ্চল সহ ৯ টি অঞ্চল থেকে বিজেপি এবং সিপিএম ছেড়ে ওই পরিবার গুলি তৃণমূলে যোগদান করলেন”।

অন্যদিকে,স্থানীয় বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ এর বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ উগরে দিলেন হেতিয়া অঞ্চলের বিজেপি যুব মোর্চা সভাপতি সহ দলেরই কর্মীরা।

তাদের দাবি,”করোনা পরিস্থিতিতে বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদকে এক দিনও পাওয়া যায়নি।এমনকি ফোন পর্যন্ত ধরেননি তিনি। এলাকার গরীব অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতেও দেখা যায়নি বিজেপি সাংসদ ও বিজেপি জেলা নেতৃত্ব কে”।

প্রসঙ্গত, গত কয়েক মাস আগেই তালডাংরার শালতোড়া এলাকার ১১ জন বিজেপি কর্মী তৃণমূলে যোগ দেন। বিষ্ণুপুরে ওই বিজেপি কর্মীদের হাতে দলের পতাকা তুলে দেন জেলা তৃণমূল নেতা এবং স্থানীয় পুরপ্রধান শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়।

এবার শক্ত ঘাঁটিতে থাবা বসাল তৃণমূল। যা কিনা বিজেপির কাছে বেশ বড়সড় ধাক্কা বলেই মনে করা হচ্ছে।

২০১৯ এর লোকসভা ভোটের প্রাক্কালে আরও অনেকের সঙ্গেই ওই তৃণমূল কর্মীরা বিজেপিতে যোগ দেন। যার ফল স্বরুপ বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রটি হাত ছাড়া হয় শাসকদলের। এই কেন্দ্রে দ্বিতীয়বারের জন্য জয়ী হন সেই সময়ের ‘তৃণমূলত্যাগী’ সাংসদ সৌমিত্র খাঁ।

এদিন এক সময়ের ‘তৃণমূল কর্মী’ পরে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখানো ওই ১১ জন ফের ফিরে এলেন ঘাস ফুল শিবিরে।যা কপালে চিন্তার ভাঁজ বাড়িয়েছে বঙ্গপ-বিজেপির।

 

PAYTM

GOOGLE PAY