July 10, 2020

MIRROR NEWS

re-flexion of truth

অন্ডালে ধসে তলিয়ে যাওয়া মহিলার মৃতদেহ উদ্ধার

উদ্ধার করা হল পশ্চিম বর্ধমানে অন্ডালের জামবাদ খোলামুখ খনির ধসে তলিয়ে যাওয়া মহিলার মৃতদেহ।ঘটনা ঘটার ১০ দিন পর সোমবার রাতে উদ্ধার হয় মৃতদেহ।এরপরই ক্ষোভে ফেঁটে পড়ে এলাকাবাসীরা।

এলাকার পুনর্বাসনের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন এলাকাবাসী।যার জেরে এলাকায় মোতায়েন করা হয় বিশাল পুলিশ বাহিনী।অসন্তোষ মোকাবিলা করতে নামে সিআইএসএফ।

পুলিশের তরফে এব্যাপারে ইস্টার্ন কোল ফিল্ডস বা ইসিএলকে জানাবে বলে আশ্বাস দিলে, তারপরে মৃতদেহ নিয়ে যেতে দেওয়া হয়।ইতিমধ্যে  দেহটিকে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত,২০ জু্‌ন,শনিবার জামবাদ খোলামুখ খনির প্রায় বারোশো মিটার এলাকা জুড়ে ধস নামে। ধসের ফলে তলিয়ে যায় ইসিএলের একটি পরিত্যক্ত আবাসন। পরিত্যক্ত ঘোষণা করা সত্ত্বেও সেখানে ছ’জনের একটি পরিবার বাস করত।

রাত একটা নাগাদ যখন  নামে তখন অন্যরা চলে গেলেও শাহনাজ খাতুন নামে ওই আবাসনের এক জন বাসিন্দাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে নিশ্চিত ভাবে জানা যায় যে তিনি ধসে তলিয়ে গেছেন।

তারপরেই বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। ধসে নিখোঁজ মহিলার দেহ উদ্ধারের দাবি করার পাশাপাশি ইসিএল কর্তৃপক্ষের কাছে পুনর্বাসনের দাবিও জানান তারা।

প্রসঙ্গত,২০১৫ সালে জামবাদ খোলামুখ খনি ও খনি লাগোয়া আবাসনগুলীকে পরিত্যক্ত বলে ঘোষণা করে সরকার।তারপরেও বেশ কিছু পরিবার সেখানে বসবাস করে আসছিল।২০ জুন,ধস নামলে তাতে তলিয়ে যায় ওই মহিলা।

পরিস্থিতি পর্যবেক্ষনে ২১ জুন,রবিবার সেখানে  যান আসানসোলের মেয়র তথা পাণ্ডবেশ্বরের বিধায়ক জিতেন্দ্র তিওয়ারি। সেখানে গিয়ে অবৈধ কয়লা বিক্রি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

ঘটনার প্রায় ছয় থেকে সাত ঘন্টা পর শুরু হয় উদ্দার কাজ।কাজ চলার সময়ে ফের ধস নামলে বন্ধ হয়ে যায় উদ্ধার কাজ।এর পর ২৯ জুন,সোমবার উদ্ধার করা হয় শাহোনাহ খাতুন নামে ওই মহিলার মৃতদেহ।

PAYTM

GOOGLE PAY