October 30, 2020

বীরাঙ্গনা মাতঙ্গিনী হাজরা

প্রয়াণ দিবসে শ্রদ্ধার্ঘ বীরকন্যা মাতঙ্গিনী হাজরাকে

 

লহ প্রনাম

 

আজ ২৯ সেপ্টেম্বর। আজকের দিনেই দেশের জন্য আত্মবলিদান দিয়েছিলেন ভারতের বীরাঙ্গনা নারী মাতঙ্গিনী হাজরা। ইংরেজ সেনার সামনে নির্ভীক ভাবে গুলিবিদ্ধ হন তিনি।

১৯৪২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর তদনীন্তন মেদিনীপুর জেলার তমলুক থানার সামনে ব্রিটিশ পুলিশের গুলিতে তিনি শহিদ হয়েছিলেন।
তাঁর জন্ম ১৮৭০ সালে ১৯ অক্টোবর। তিনি তমলুকের নিকটবর্তী আলিনান গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। তাঁর বেড়ে ওঠা এক দরিদ্র কৃষকের পরিবারে। তাই হয়তো ছোটো বেলা থেকেই অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো তাঁর মর্জায়। অল্প বয়সেই তাঁর বিয়ে হয়ে গিয়েছিল। তিনি মাত্র আঠারো বছর বয়সেই নিঃসন্তান অবস্থায় বিধবা হয়েছিলেন।

১৯০৫ সালে তিনি প্রতক্ষ ভাবে স্বাধিনতা আন্দোলনের সঙ্গে জরিয়ে পরেন। তিনি ভারত ছাড়ো আন্দোলন আইন অমান্য আন্দোলন প্রভৃতি বিভিন্ন আন্দোলনে যোগদান করেন।

এইসকল কারনে বহুবার তাঁকে কারাবাসে জীবন অতিবাহিত করতে হয়েছে। মতাদর্শের দিক থেকে তিনি ছিলেন গান্ধীবাদী। এরফলে ১৯৩৩ খ্রিস্টাব্দে তিনি শ্রীরামপুরে মহকুমা কংগ্রেস অধিবেশনে যোগ দিয়ে পুলিশের লাঠিচার্জের সময় আহত হন। গান্ধীবাদ অবলম্বনে তাঁর নিষ্ঠার জন্যই তাঁকে দেশবাসীর কাছে ‘গান্ধী বুড়ি’ সম্মান এনে দেয়।

ঐতিহাসিক গুরুত্ব সম্পন্ন পত্রিকা অনুযায়ী, ১৯৪২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর তিনি কংগ্রেসের হয়ে একটি মিছিলের নেতৃত্ব দিচ্ছেলেন। সেই সময়েই তাঁর ওপর গুলি চালায় ব্রটিশ সেনা। কিন্তু তাতেও তিনি দমে জাননি। বন্দেমাতারাম ধ্বনি স্বরে ভুবন মাতিয়ে তিনি প্রাণ ত্যাগ করেন।

PAYTM

GOOGLE PAY