October 30, 2020

প্রথম প্রেসিডেন্সিয়াল বিতর্কে মুখোমুখি ট্রাম্প ও বিডেন

প্রাক্তন উপরাষ্ট্রপতি জো বিডেনের সাথে প্রথম প্রেসিডেন্সিয়াল বিতর্কে জড়ালেন মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প।

কিন্তু তার পুত্র হান্টার বিডেন ই হয়ে দাঁড়াল প্রধান বিষয়।

তাকে নিয়ে ট্রাম্পের বক্তব্য হল -তার পুত্র চিন এবং ইউক্রেন এ ব্যবসা করে কোটি কোটি টাকা উপার্জন করেছে।

ট্রাম্পের মতে,হান্টার বিডেন চিনের একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক থেকে কোটি টাকা উপার্জন করেছেন।

যদি ও ফ্যাক্ট চেকিং ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ি,এসব ই ভুয়ো।

সূত্র অনুযায়ি,তার অ্যাটর্নি জানান,২০১৭ তে হান্টার বিডেন ৪২০০০০ডলার এর একটা ইকুইটি স্টেক নিয়েছিলেন।

এরপর আর কিছু না পেয়ে ট্রাম্প হান্টারের ড্রাগ অ্যাডিকশনের কথা তুলে ধরেন।তাতে জো জানান- তার ছেলের এই সমস্যা ছিল।

কিন্তু বর্তমানে নেই। আর এজন্য তিনি খুব ই গর্বিত।

এরপর ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানান তিনি।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ট্রাম্পের করণীয় দিকটি তুলে ধরে তিনি জানান,তিনি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে ব্যর্থ হয়েছেন,নিজেই সমাবেশ করে বেড়িয়েছেন,সত্যি বলতে ভাইরাস এর প্রতিরোধে তার কোন প্ল্যান ই ছিল না।

তিনি এর ভয়াবহতা সম্বন্ধেও অজ্ঞ ছিলেন।

এরপর ক্যামেরায় সরাসরি চোখ রেখে তিনি জানতে চান- করোনা ভাইরাস রোধে আমেরিকাবাসী তাকে আদেও ভরসা করে কি না।

কিন্তু ইতিমধ্যে আরেক পা এগিয়ে আসেন ট্রাম্প।

বিডেনের কথা চেপে দিয়ে তিনি বলেন – জানুয়ারিতেই চিন এর সব উড়ান নিষিদ্ধ করা হয়েছিল।

ফলে লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবন রক্ষা হয়।

আর গভর্নর তার এই “অসাধারণ কাজ” এর জন্য তাকে বাহবা জানিয়েছেন।

এমন কি বিডেনের দলের অনেক ডেমোক্র‍্যাট সদস্যই তার এই কাজের প্রশংসা করেছেন।

বিতর্ক টি আস্তে আস্তে প্রায় ঝগড়ায় পরিণত হয়। বিডেন প্রথমে তাকে থামতে বলেন।

কিন্তু তিনি একনাগাড়ে বলতেই থাকেন।

তার বক্তব্য,গত ৪৭ বছরে বিডেন কোন কাজ ই করেন নি।সবশেষে মডারেটর ক্রিস ওয়ালেক তাকে আয়করের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করেন।

তথ্য অনুযায়ি,২০১৬ ও ২০১৭, তে ট্রাম্প ৭৫০ ডলার আয়কর দিয়েছেন কিন্তু গত ১৫ বছরের প্রথম ১০বছরে তিনি কিছুই দেননি।

কিন্তু ট্রাম্প সেই তথ্য কে সম্পূর্ণ নস্যাত করে জানান,তিনি লক্ষ লক্ষ টাকা আয়কর দিয়েছেন।

PAYTM

GOOGLE PAY