November 23, 2020

বিশ্বভারতীর দিন গুলো মনে পড়ে সুরঞ্জনার

সুরঞ্জনার লেখাপড়া -সঙ্গীত শেখা শুরু হয়েছিল বিশ্বভারতীর অঙ্গনে।বহু গুরুর আশীর্বাদ ধন্য সুরঞ্জনা আজ একজন সফল

রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী। পাশাপাশি পেশায় সে একজন শিক্ষিকা।

আজ মুখোমুখি সুরঞ্জনা-

 

আমার জন্ম,পড়াশোনা শান্তিনিকেতনে। খুব ছোট থেকেই গান ঢুকে পড়ে আমার মধ্যে। শান্তিনিকেতনের আকাশে,বাতাসে,

প্রতিটি কোণে কোণে গান। তাই খুব সহজেই পড়াশোনার পাশাপাশি গান একটি মুখ্য জায়গা হয়ে উঠল। প্রথম গানের ক্লাস করা

চার বছর বয়সে। ওইটুকু বয়সেই আমাদের শিক্ষক শিক্ষিকারা সুর আর তালে গান শেখানোর চেষ্টা করতেন। কোনোদিন

Harmonium বাজিয়ে শেখাননি। সা পা সা বাজিয়ে সুর মিলিয়ে গাইতে বলতেন। খুব ছোটদের হাতে তালি দিয়ে শেখাতেন।

স্কুলের গন্ডি পেরিয়ে বিদ্যাভবনে পড়ার সাথে সাথে সঙ্গীতভবনে ভর্তি হলাম Certificate Course এ। বাবার দীর্ঘ কর্মজীবন ও

ছাত্রজীবন বিশ্ব ভারতীতে। তাই বাবার সূত্রে শ্রীমতি কণিকা বন্দোপাধ্যায়  ,শ্রীমতি নীলিমা সেন,

শ্রী শান্তিদেব ঘোষের মতো

কিংবদন্তি শিল্পীদের সান্নিধ্য ও আশীর্বাদ পেয়েছি। আজও বিশেষ কিছু গান গাইতে গেলে ওনাদের কাছ থেকে যেটুকু শিক্ষা

পেয়েছি সেভাবেই গাইতে চেষ্টা করি।

এছাড়াও ছোট থেকে অনেক শিক্ষক শিক্ষিকার কাছে আমি গান শিখেছি। শ্রীমতি বুলবুল

বসু, শ্রীমতি স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায় এর কাছে শান্তিনিকেতনে থাকার শেষদিন অবধি শিখেছি। আজ গানের জগতে এসে বারবার

ফিরে যাই ‘সেই যে আমার নানা রঙের দিনগুলি’তে।

PAYTM

GOOGLE PAY