May 8, 2021

শুক্রবার নবদ্বীপের জনসভায় করোনা ইস্যুতে মোদি সরকারকে বিঁধলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এই মূহুর্তে দেশে একদিনে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে।২৪ ঘণ্টায় প্রাণ গিয়েছে ১১৮৫ জনের।

এই অবস্থায় রাজ্যে ৮ দফা ধরে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ভিন রাজ্য থেকে আসছেন বিজেপির একাধিক নেতা মন্ত্রীরা।

এই সমস্ত কথা বলে বিজেপি ও নরেন্দ্র মোদিকে তীব্র আক্রমণ করলেন তৃণমূল সুপ্রীমো।

এমনকি রাজ্যে করোনা ছড়ানোর জন্য কার্যত মোদিকেই দায়ী করলেন তিনি ।

তাঁর যুক্তি‌, এই রাজ্যে করোনা কমে গিয়েছিল।

যখন করোনা ছিল না তখন সকলকে ভ্যাকসিন দিতে পারত নরেন্দ্র মোদির সরকার।

কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথায়,

“আমরা অনেকদিন আগে চিঠি লিখেছিলাম বিনে পয়সায় ভ্যাকসিন দিতে চেয়ে।

কিন্তু উনি দেননি।

সারাক্ষণ রাজনীতি করেন।

পশ্চিমবঙ্গেও গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা ৬ হাজার ছাড়িয়েছে।

এই প্রসঙ্গে মমতার যুক্তি,

বহিরাগত গুন্ডারা বাইরে থেকে আসছে। বাংলায় কোভিড ছড়িয়ে দিয়ে চলে যাচ্ছে।

প্যান্ডেল করতে বাইরে থেকে লোক আসছে।গুজরাট থেকে লোক নিয়ে এসে কেন প্যান্ডেল হবে?

” বাংলায় কোভি়ড ছড়াবেন না নরেন্দ্র মোদি।

আপনাকে বারবার বলছি”। বলে এদিনের জনসভা থেকে হুঁশিয়ারি দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এর পরেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলতে থাকেন,

দিন কয়েক আগেই রাজ্যে দুই খেপে মোট ৫ লক্ষ ভ্যাকসিন এসেছে এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানে।

আনা হয়েছে কোভিডশিল্ডও।

বাগবাজারের স্টোর থেকে তা সরবরাহ করা হয়েছে নানা জায়গায়।

মমতা সেই প্রসঙ্গেই বললেন,

তবু যতটুকু আছে সেই ভ্যাকসিন বিনা পয়সাতেই দিচ্ছি আমরা”।

এদিন ভোটারদেরও মাস্ক পরে ভোট দিতে যাওয়ার দাওয়াই দেন মমতা।

স্পষ্ট ভাষায় বলেন,

” ভোট না দিলে মাঠের সোজা বাইরে বের করে দেবে”।

ভ্যাকসিন যুদ্ধে দিল্লির সাহায্য প্রার্থনা করলেও, রাজ্য পরিচালনায় নিজের শক্তিতেই আস্থাবান মমতা।

তাই  এদিন নিমাইয়ের দেশে এসেও তাঁকে বলতে শোনা গেল,

দিল্লি আমাদের কথায় চলবে, আমরা দিল্লির কথায় চলব না।