Home FEATURE আফগানিস্তানে বিপদে L G B T Q । পাশে দাঁড়ালো রেনবো...

আফগানিস্তানে বিপদে L G B T Q । পাশে দাঁড়ালো রেনবো রেলরোড

24
0

গত সপ্তাহের ১৫ই আগস্ট আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল এ তে ঢুকে দেশের ক্ষমতা দখল করে তালিবান।

মার্কিন যুক্ত রাষ্ট্রের ২০ বছরের যুদ্ধের শেষে আবার আফগানিস্তানের মসনদ দখল করে তারা।

 

এই ঘটনার পর থেকেই দেশ ছেড়ে পালতে শুরু করে লক্ষাধিক আফগান নাগরিক।যদিও পরিসংখ্যান অনুযায়ী

এবছর এর শুরু থেকেই দেশ ছেড়েছেন প্রায় ৪ লক্ষ আফগান নাগরিক।

 

রাষ্ট্র পূঞ্জের এই পরিসংখ্যান অনুযায়ী শুধুমাত্র মে মাসের শেষ থেকে ১৫ই অগাস্ট এর মাঝেই দেশ ছেড়েছেন

প্রায় ২.৫ লক্ষ্য আফগান। আফগানিস্তানের তালিবান অধিগ্রহণ হওয়ার পর যে এক বিশাল উদ্বাস্তু সমস্যা অপেক্ষা

করছে আফগান নাগরিকদের জন্যে তা বলাই বাহুল্য।

 

তাদের সাহায্যার্থে যদিও বহু দেশই ইতিমধ্যেই আর্থিক অনুদান এবং ব্যবস্থা প্রদান এর প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।
কানাডা ও মার্কিন যুক্ত রাষ্ট্র সবার আগেই এই আফগান উদ্বাস্তু দের সাহায্যের কথা জানায়।

 

এই ধরণের মানবিক সংকটের সময় সাধারণত সবথেকে বেশি সমস্যার মধ্যে পরে সামাজিক সংখ্যালঘুরা।

এই কারণ বশতই আফগানিস্তানে নিজেদের ভবিষৎ নিয়ে চিন্তার মুখে পড়েছেন সেখানকার সমকামী সমাজ বা

এল.জি.বি.টি.কিউ. সম্প্রদায় এর মানুষরা।

 

আফগানিস্তানের আগের সরকারের অধীনে সমলিঙ্গিক ঘনিষ্ঠতা ছিল দণ্ডনীয়।কারাবাস এর সঙ্গে  ঝুঁকি

ছিল মৃত্যুদণ্ডেরও ।   এখন চূড়ান্ত মৌলবাদী তালিবান দের হাথে ক্ষমতা যাওয়ার  পর থেকেই এই গোষ্ঠীর লোকেদের ভয়

যে কুখ্যাত শারিয়া অনুযায়ী এই নিয়ম হতে পারে  আরো কঠোর।

 

১৯৯৬থেকে ২০০১ এর তালিবান রাজ এর সময় এই এল.জি.বি.টি.কিউ. গোষ্ঠীর মানুষদের ওপর হয় বহু ভয়াবহ অত্যাচার ।

ধর্ষণ,খুন অত্যাচার এর মতন বহু ঘটনার শিকার হতে হয় তাদের।

 

সাম্প্রতিক সময় ,তালিবান যদিও নিজেদের এক অনেক নমনীয় ও প্রগতিশীল চেহারা তুলে ধরার চেষ্টা করছে তবে

তাতে যে আফগানিস্তানের সমকামী মানুষ দের পরিস্তিতি বদলাবে না তা ভালো ভাবেই টের পেয়েছেন তারা।

 

এই সংকটের সময় তাই তাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে এক সমাজসেবী সংস্থা।

 

আফগানিস্তান এর সমকামী মানুষদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে রেনবো রেলরোড। এটি হলো একটি বিশ্বব্যাপী সংস্থা

যা এলজিবিটিকিউকে নিপীড়নের হাত থেকে রক্ষা করে।

 

এলজিবিটিকিউ সপ্রদায় এর আফগানদের দেশ ত্যাগ করে নতুন বাসস্থান খুজে দেওয়ায় এখন

এক অসাধারন ভূমিকা নিয়েছে এই এই এন.জি.ও।

 

২০০৬সালে কানাডায় প্রতিষ্ঠিত এই সংস্থাটি এর আগেও বহু মানবাধিকার সংকটের সময় একইরকম এর ভূমিকা পালন করেছে।
এই গ্রুপটি প্রতিবছর ৩০০০ এরও বেশি অনুরোধে সাড়া দেয় ।

 

এখন অত্যাচার এর ত্রাশ মাথায় নিয়ে বেচে থাকা সমলিঙ্গিক সংখ্যালঘু আফগান দের কাছে এই সংস্থাই রক্ষাকর্তা।

রেনবো রেলরোড এর এই মহান কাজ যে ইতিহাস এর পাতায় লেখা থাকবে তা বলাই বাহুল্য।

Previous articleবাঁচতে গর্বের পরিচয় মুছুক।তালিবানে ত্রস্ত আফগান মহিলা ফুটবলাররা
Next articleউন্নত , শান্তির আফগানিস্থান হোক। স্বাধীনতার দিনে এমন স্বপ্নেই ক্রিকেটার রশিদ