Home DISTRICTS পুরী থেকে মায়াপুরে!

পুরী থেকে মায়াপুরে!

160
0

হাতে গোনা আর কয়েক ঘন্টা। এরপরই জগতের নাথ জগন্নাথ দেব ,

বলভদ্র ও বোন সুভদ্রাকে নিয়ে রথে চেপে বসবেন।

সে মন রথ আমাদের পার্থিব কামনা বাসনার রাশ টেনে মুক্তির পথ চেনাবে।

ওড়িষার পাশাপাশি এই রাজ্যের   বিভিন্ন জেলায় রথযাত্রা বেশ ধুমধাম করেই পালিত  হয়।তবে শ্রী চৈতন্য দেবের জন্মস্থান নবদ্বীপ মায়াপুরের ইসকন মন্দিরের রথযাত্রা বেশ জনপ্রিয়।

 

বিগত দুই বৎসর করোনাকালে রথযাত্রার তেমন ভাবে পালিত হয়নি

মায়াপুর ইসকনে। এবছর সরকারি সমস্ত বিধি মেনেই পালিত হচ্ছে

রথযাত্রা উৎসব।

 

ইসকন মায়াপুর থেকে প্রায় 5 কিলোমিটার দূরে রাজাপুর গ্রাম সেখানে

জগন্নাথ মন্দির থেকে তিনটি পৃথক রথে করে জগন্নাথ বলদেব,

সুভদ্রা মহারানী মায়াপুর চন্দ্রোদয় মন্দিরের অস্থায়ী গুণ্ডিচায় মাসীর

বাড়িতে  আসবেন।

 

উল্টোরথ পর্যন্ত মাসির বাড়িতে একাধিক মেনুতে খাওয়া-দাওয়া সারবেন

জগন্নাথ বলদেব সুভদ্রা। আর সেই প্রসাদ ইসকনে আগত সমস্ত ভক্তদের

উদ্দেশ্যে বিতরণ করা হবে বলে ইসকন সূত্রে খবর।

 

রথযাত্রা উপলক্ষে ইতিমধ্যেই হাওড়া নবদ্বীপ এবং শিয়ালদা কৃষ্ণনগর বিশেষ

ট্রেনের দাবি করা হয়েছে ইসকনের তরফ থেকে।

 

ইসকনের প্রধান কেন্দ্র মায়াপুরে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এ কথা জানালেন

ইসকনের ডাইরেক্টর ব্রজবিলাস কো-অর্ডিনেটর জগদার্তিহা দাস এবং

জনসংযোগ আধিকারিক রশিক গৌরাঙ্গ দাস।

 

পাশাপাশি এবারের বিশেষ আকর্ষণ হল মায়াপুর ইসকন মন্দিরে রথযাত্রা

উপলক্ষ্যে দর্শনার্থীদের কাছে  ভগবান বল দেবের রথের চাকা।

 

রথযাত্রা উপলক্ষ্যে শুক্রবার পুরি থেকে ভগবান বল দেবের রথের চাকা এসে

পৌঁছালো নবদ্বীপ মায়াপুর ইসকন মন্দিরে। সূত্রের খবর, সুদূর পুরীধাম থেকে

এই রথের চাকা মায়াপুর ইসকন মন্দিরে নিয়ে এসেছেন ইসকন কর্তৃপক্ষ।

 

ইসকন মায়াপুরের জনসংযোগ আধিকারিক গৌরাঙ্গ দাস মহারাজ  জানাচ্ছেন,

যেসব দর্শনার্থীরা পুরীধামে পৌঁছে জগন্নাথদেবের রথযাত্রায় অংশগ্রহণ করতে

পারেন না মূলত তাদের কথা মাথায় রেখে এই বছর সুদূর

পুরীধাম থেকে ভগবান বল দেবের রথের চাকা নিয়ে আসা হয়েছে ইসকন

মায়াপুরে।

 

দর্শনার্থীরা মায়াপুর মন্দির প্রাঙ্গণে এসে পবিত্র এই রথের চাকা দর্শন ও

স্পর্শ করে নিজেদের ভক্তি নিবেদন করতে পারবেন বলেও এইদিন

জানান রসিক গৌরাঙ্গ দাস মহারাজ।

 

ফিবছর  জগন্নাথ দেবের রথ উৎসব উপলক্ষ্যে নতুন রথ তৈরি করা হয় পুরী

ধামে।  পুরানো রথের চাকা বহু মূল্যের বিনিময় অকশনের মাধ্যমে

হস্তান্তর করা হয়।

 

সেখান থেকেই লক্ষাধিক অর্থ ব্যয় করে পবিত্র এই রথের চাকা শুধুমাত্র

দর্শনার্থীদের কথা মাথায় রেখে সুদূর পুরীধাম থেকে নদীয়ার নবদ্বীপ মায়াপুর

ইসকন মন্দিরে নিয়ে এসেছেন ইসকন কর্তৃপক্ষ।

Previous articleডুবল ট্রলার! উদ্ধার ১৩
Next articleচা চিনে বিপত্তি !