Home INTERNATIONAL নতুন করে গৃহযুদ্ধ শুরু আফগানিস্তানে?দেশ-রক্ষায় শিশুদের হাতেও আগ্নেয়াস্ত্রের ছবি

নতুন করে গৃহযুদ্ধ শুরু আফগানিস্তানে?দেশ-রক্ষায় শিশুদের হাতেও আগ্নেয়াস্ত্রের ছবি

29
0

আবারো গৃহযুদ্ধের পথে আফগানিস্তান।কিছুদিন আগেই তালিবান এর বিরুদ্ধে শপথ নেওয়া আহমদ মাসুদ এর

জাতীয় প্রতিরোধ ফ্রন্ট এর সাথে তালিবান যুদ্ধের সম্ভাবনা দিনের পর দিন  বেড়েই যাচ্ছে।

 

ইতিমধ্যে তাদের সভা করে হুশিয়ারি দেওয়ার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে নেট দুনিয়ায়।

 

সাম্প্রতিক মার্কিন সংবাদ মাধ্যম ,দি ওয়াশিংটন পোস্ট  এর একটি ওপিনিয়ন পোস্ট এ তেই মাসুদ বলেন যে বহু

প্রাক্তন আফগান সেনা বাহিনী এবং স্থানীয় মুজাহিদ দের নিয়ে সমৃদ্ধ তাদের সংগঠন এবং তালিবান কে এক ইঞ্চি ও জমি ছাড়তে নারাজ তারা।

 

ইতিমধ্যেই তালিবান এর বিরুদ্ধে আফগানিস্তানে বিদ্রোহ করে সারা বিশ্বের নজরে এসে পড়েছে পাঞ্জশির এর এই সংগঠন।

 

পাঞ্জশির এর এই গোষ্ঠীর উর্ধমুখী জনপ্রিয়তারই উত্তর দিলো তালিবান।

 

তালিবান এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে তালিবান এর শতাধিক যোদ্ধা ইতিমদ্ধেই পাঞ্জশির উপত্যকার উত্তর প্রান্তে পৌছে গেছে ।

সেখানকার স্থানীয়দের তালিবান এর সাথে শান্তিপূর্ণ সহযোগিতা না করার ফলেই সেখানে গেছে তালিবান যোদ্ধারা।

 

এই ঘটনার পরে যে আফগানিস্তানে এক নতুন বৃহত্তর গৃহযুদ্ধের আভাস পাওয়া যাচ্ছে তা বলাই বাহুল্য ।

 

তালিবান-বিরোধী শক্তিগুলির বিবৃতি অনুযায়ী তালিবান এর কাবুল দখল এর পর থেকেই হাজারেরও বেশি মুজাহিদ

তাদের পাঞ্জশির এ তে এসে যোগ দিয়েছে।

 

এই তালিবান বিরোধী শক্তির মুখপাত্র আফগান সংবাদ এজেন্সী এ.এফ.পি. কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন যে

মাসুদ ইতিমধ্যেই প্রায় ৯হাজার এর ও অধিক যোদ্ধার সমর্থন জোগাড় করতে পেরেছেন।

 

নাসির এও বলেন যে তারা চায় একটি নতুন প্রগতিশীল সরকার চালান এর পদ্ধতি এবং তার জন্যে যদি দরকার হয় তবে তারা লড়তে প্রস্তুত।

 

এ.এফ.পি-র তোলা একাধিক ভিডিও ও ছবি তে পাঞ্জশির উপত্যকার একাধিক  অঞ্চলে অনুশীলনরত তালিবান বিরোধী যোদ্ধাদের এবং

বেশ কিছু  সাঁজোয়া  গাড়ি দেখা গেছে ।

 

সৌদির এক সংবাদ মাধ্যম কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মাসুদ জানিয়েছেন  ” এই রাস্তায় তালিবান বেশি দিন টিকতে পারবে না

এবং আমরা আমাদের দেশ কে রক্ষা করতে প্রস্তুত।যদিও আগের থেকেই রক্তক্ষয় এর সতর্কতা দিয়ে রাখছি।”

 

এর থেকে স্পষ্ট বোঝাই যাচ্ছে যে দীর্ঘ ২০ বছরের লড়াই এর পরেও শান্তি এখনো আফগানিস্তানে এখনো অনেক দূরে।

 

Previous articleইউরো কাপ ফাইনাল (প্রথম পর্ব)
Next articleদেখার গল্প (দশম পর্ব)