Home HEADLINE STORY বাংলায় নয় লকডাউন

বাংলায় নয় লকডাউন

56
0

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ কে আটকানোর জন্য এখনই লকডাউনের পথে হাঁটছে না বাংলা ।মালদায় সাংবাদিক সম্মেলনে স্পষ্টই জানিয়ে দিলেন মুখমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

লকডাউন মানেই প্রচুর পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি।করোনা ঝড়কে সামলাতে আতঙ্কিত না হয়ে বরং আরও মানবিক হওয়ার কথা জানালেন তিনি।

সংকটজনক অবস্থা হলেই একমাত্র হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার কথা বলেন।মৃদু উপসর্গ থাকলে তার গুরুত্বের ভিত্তিতে সেফহোম এবং হোম আইসোলেশানে থাকার আবেদন জানান মুখ্যমন্ত্রী।

আরও জানান সেফহোমগুলিকে হাসপাতালের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে।বর্তমানে ১১হাজার বেড রয়েছে ।

আগামি দুদিনে আরও ২হাজার বেড যুক্ত হবে।একই্সঙ্গে হাসপাতালগুলিকে নির্দেশ দিয়েছেন যেন কোনমতেই একজনও রোগী বিনাচিকিৎসায় ফিরে না যান।

৮০টি হাসপাতালে ৭হাজারেরও বেশি অক্সিজেন বেড রয়েছে এবং মোট ৭০টি কোভিড হাসপাতাল রয়েছে।

বাজারে অক্সিজেনের ঘাটতি নিয়ে বেশ ক্ষোভ দেখা যায় তাঁর।

বাড়তি মুজতদারি  এবং কালোবাজারি রুখতে সকার নজরদারি চালাবে বলে আশ্বাস দেন।

টিকাকরণ প্রসঙ্গে বলেন এখন পর্যন্ত ৯৩লক্ষ প্রতিষেধকের ডোজ দেওয়া হয়েছে, যার আওতায় ২.৫কোটি পরিবার অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।

কেন্দ্রের কাছে আরও ১কোটি প্রতিষেধক চেয়েছে রাজ্য এবং বাজার থেকেও সরাসরি প্রতিষেধক কেনার পরিকল্পনা আছে বলে জানান নেত্রী।

টিকাকরনের জন্য ১০০কোটি টাকর আর্থিক তহবিল গঠিত হয়েছে রাজ্যে।করোনা আক্রান্ত হলে রোগীদের কাউন্সেলিং করবেনচিকিৎসকেরা।

কেন্দ্রকে প্রতিষেধকও অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে তিনি যে চিঠি দিয়েছেন সেকথাও বলেন।

সিরাম ইনস্টিটিউটের উৎপাদিত প্রতিষেধকের দাম নিয়েও ক্ষুব্ধ নেত্রী।প্রতিষেধক নিয়ে ব্যবসা বা বৈষম্য কোনটাই করা উচিত নয় বলে তিনি মনে করেন।

তাঁর বক্তব্য করোনা ঝড়কে সামলাতে হবে সতর্কতার সঙ্গে অযথা আতঙ্ক করে লাভ নেই।

অবশ্য বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাদের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবরে যথেষ্ট উদ্বিগ্ন তিনি।মর্মাহত কবি শঙ্খ ঘোষের প্রয়াণেও।

আগামি ভোটপর্বে নতুন করনাবিধি জারি করার কথা বলার পাশাপাশি বলেন করোনা আক্রান্ত হলেও যেন মানুষ ভোট দেন।

সেক্ষেত্রে কেউ ভোট দিতে চাইলে পোস্টাল ব্যালটের অনুমতি দেওয়া উচিত নির্বাচন কমিশনের মন্তব্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

Previous articleপ্রয়াত মারাঠী অভিনেতা কিশোর নন্দলস্কর
Next articleষষ্ঠ দফার নজর কাড়া প্রার্থী