Home ENTERTAINMENT vaccine অমিল হলেও নয়া ভারিয়েন্টে BGMI

vaccine অমিল হলেও নয়া ভারিয়েন্টে BGMI

13
0

 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু এর  সমীক্ষায় আর ঘোষনায়  সব দেশের তাদের জনসংখ্যার অন্তত ১০ শতাংশ এর  করোনার

টীকাকরন  প্রয়োজন । স্বনির্ভরতার লক্ষ্যে এগিয়ে যাওয়া আমাদের দেশেও টীকা করন চলছে !  তবে দ্বিতীয় দফার টীকার হাল

হদিশ না মিললেও , ফের বাজার কিন্তু দাপিয়ে বেড়াচ্ছে  PUBG র নয়া ভার্সন । নতুন ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে সে হাজির ।

হাজির নতুন প্রজন্মের নেশায় বুঁদ হয়ে যাওয়ার নতুন ডোজ নিয়ে । নকল যুদ্ধ যুদ্ধ খেলাতে বাজারে তাই BGMI।

 

গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে , দেশের তরুন প্রজন্মের মাথায় ভেঙ্গে পড়লো আকাশ ।

তবে সবাই যে সেই নেশায় বুঁদ ছিলেন তা হয় তো নয় ।কিন্তু শেষ পর্যন্ত দেশের সরকারের সিদ্ধান্তের কাছেই নতি

স্বীকার করতে হলো PUBG র মতো খেলার উত্তেজনা আর আবেগ কে ।

 

২০১৭ তে সারা বিশ্বে PUBG প্রকাশ পাওয়ার পরেই ,রাতারাতি খ্যাতির শীর্ষে চলে আসে ওয়াই দুনিয়ার প্রিয় এই খেলাটি ।

ভারতেও এই গেম এর জনপ্রিয়তা ছুঁয়েছিল আকাশ ।লাখের সংখ্যায় ব্যবহারকারী নিয়ে PUBG ভিডিও গেম এর জগতের

এক পথিকৃৎ হয়ে উঠেছিল ।ভারতবর্ষে E -Sports  এর জগতের অসামান্য বিস্তার এর আধিপত্য যেন ছিল  PUBG র  হাতেই  ।

 

PUBG  প্রচুর সংখক streamer এর ও খ্যাতি লাভ এর কারণ হয়ে উঠেছিল।তবে বাধ সাদলো ।  গেমটির

খ্যাতির কারন ছিল মাত্রাতিরিক্ত হিংসা আর তথ্য ভান্ডার তৈরি করা । ফলে হিংসাত্মক  চিন্তাভাবনা ছড়ানো ও

ব্যবহারকারীদের তথ্য সুরক্ষার জন্য  দেশে  নিষিদ্ধ করা হল এই  গেম টিকে ।

 

তবে নেটিজেন রা বলেন ,  ২০২০ সালের  সেপ্টেম্বর নাগাদ   চীন এর সংগে দেশের কূটনৈতিক ও রাজনৈতিক সম্পর্কে

খানিক চিড় ধরলে তার বেশ বড় প্রভাব টাই পড়েছিল। ফলে   চীন এ তৈরি এই ই – স্পোর্টস কোম্পানী গুলিকে তাদের বানানো

অ্যাপ গুলিকে এদেশে যে চালানোয় নিষেধাজ্ঞা জারি করে ভারত সরকার।

 

চলতি  বছরের  এর শুরুর দিকেই PUBG  সংস্থার  পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল যে ভারতে PUBG ফিরবে।

আর বেশ কিছুদিন আগেই এই সংস্থা  তাদের PUBG র পরিবর্তে BGMI নামক এক গেম এর কথা জানায়।

এই গেম তৈরী PUBG এ আদলেই ।

 

এই BGMI তে পার্থক্য হচ্ছে যে এখানে চীন এর টেন্সেন্ট নামক গেমিং সংস্থার বদলে ,ভারতীয় গেমলফট এর সঙ্গেই  তৈরী

করা হয়েছে এর খেলার ধরন ধারন কে ।  এই গেম এ  হিংসাত্মক চিন্তাধারা কমানোর জন্য ও বিভিন্ন ব্যবস্থা  রাখা হয়েছে।

২রা জুলাই তে এন্ড্রোইয়েড ব্যবহারকারীদের  জন্য  বাজারে আসে  এই BGMI । ফলে  BGMI আসতেই  প্রাক্তন PUBG ব্যবহারকারীদের

উত্তেজনার পারদ মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে।

 

আসলে এই খেলার সফলতা যে অর্থনৈতিক  । নির্দিষ্ট পদ্ধতিতে এই গেম খেলে যারা অর্থ উপার্জন করতেন ।

তাদের কাছে তো নতুন নামে পুরনো শরীরে এই গেম লক ডাউনের বাজারে বেচে থাকার আলাদা স্বাদ এনে দিয়েছে ।

তাই স্বনির্ভর ভারতে খেলো ইন্ডিয়া খেলো স্লোগান তুললে অনেকেই হয়ত গলা মেলাবেন ।

 

 

Previous articleসাপে কাটা মড়া
Next articleমৃত্যুতেই মুক্তি স্ট্যান স্বামীর