Home Rememberance আড়ালে থেকে করায় আমি বিশ্বাস করি না….

আড়ালে থেকে করায় আমি বিশ্বাস করি না….

84
0

সদ্য প্রয়াত বাংলার অন্যতম রাজনীতিবিদ তথা বর্তমান  রাজ্য সরকারের

ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় এর মতো মানুষের সোজাসাপ্টা জীবনের

কথা লিখলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক সুমন ভট্টাচার্য

 

শোন, যা করবি, সামনে দাঁড়িয়ে নিজে করবি|

আমি অন্তত রাজনীতিতে তাই বিশ্বাস করি|

প্রিয় দার মতো সব আড়ালে থেকে করায় আমি বিশ্বাস করি না….

প্রায় তিন দশক আগে এক সরস্বতী পুজোয় আমার কাঁধে হাত রেখে যিনি কথাগুলো

বলেছিলেন,তাঁর নাম সুব্রত মুখোপাধ্যায়…

এই যে জীবনকে ফ্রন্টফুটে নেওয়া, চিরকাল বাপি বাড়ি যার ঢংয়ে রাজনীতিতে ব্যাট

চালানো,এর নাম সুব্রত মুখোপাধ্যায়…

তা না হলে কেউ আজ থেকে প্রায় তিরিশ বছর আগে রাজনীতির মধ্যগগনে থেকে,

মুনমুন সেন এর সঙ্গে সুইমিং পুলে নেমে চৌধুরী ফার্মাসিউটিক্যালস নামক সিরিয়ালে

অভিনয় করতে পারেন?

অথবা সিদ্ধার্থশঙ্কর রায়ের মন্ত্রিসভায় মন্ত্রী থেকে জরুরি অবস্থার

সেই দিনগুলোতে কেউ কোনও সংবাদপত্রগোষ্ঠীকে সলিডারিটি জানাতে পারে?

সুব্রত মুখোপাধ্যায় পারতেন|

 

ছোটবেলা থেকে বারবার শুনেছি, প্রেম, বন্ধুত্ব,

শত্রুতা…সব কিছু সুব্রত কাকু বুক চিতিয়ে

করেন…

কিন্তু সেটা তো ছোটবেলায় পারিবারিক পরিসরে জানা|

 

একটু যখন বড় হলাম,সাংবাদিকতায় এলাম, তখন দেখলাম আসলেই তিনি ডাকাবুকো…

বিধানসভায় সিপিএমের স্পিকারকে এমন মন্তব্য করছেন যে হাসি সামলানো মুশকিল হয়ে

যাচ্ছে, আবার অক্লেশে কোনও বিষয়ে জ্যোতি বসুর প্রশংসা করছেন|

 

গত শতকের ৬ এর দশকে ছাত্র রাজনীতিতে হাতেখড়ির পর থেকেই আসলে সুব্রত

মুখোপাধ্যায় শিরোনামে| এবং উত্তরবঙ্গ থেকে আসা প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সির সঙ্গে দক্ষিণবঙ্গের

এই তরুণ তুর্কির যে যুগলবন্দি তৈরি হচ্ছে,তা বাংলার রাজনীতিতে প্রায় সেলিম জাভেদ এর

মতো আইকনিক জুটি হয়ে যাচ্ছে| মহাজাতি সদনে এক সঙ্গে রান্না করে খাওয়া থেকে শুরু

করে তেরঙ্গা পতাকা নিয়ে লড়াইয়ের এক মহাকাব্যিক আখ্যান তৈরি করছে..

 

স্বভাবে অনেকক্ষেত্রেই বিপরীত এই জুটির প্রধান বৈশিষ্ট্য ছিল একে অপরের প্রতি প্রগাড়

আস্থা| সুব্রত যেমন ২০১৭ তে প্রিয়রঞ্জনের মৃত্যুর আগে পর্যন্ত খর্বকায় এই রাজনীতিককেই

গুরু মানতেন, তেমনই দাশমুন্সির জীবনের অন্যতম ভরসার স্থল ছিলেন সদ্যপ্রয়াত

বালিগঞ্জের বিধায়ক…দুজনে আলাদা দলে, হয়তো বাক্যালাপও করছেন না, কিন্তু একে

অপরের নামে ঠিকানা লেখা এত পাস রেখে যেতেন, যে অবিশ্বাস্য মনে হতো…

এবং সেটা রাজনীতির বাইরে ব্যক্তিগত পরিসরেও…

 

প্রিয় কাকুকে একবার জিজ্ঞেস করেছিলাম, কি করে বুঝলেন,এটা সুব্রত কাকু করে দেবে?

নিজের চিরাচরিত হাত মটকাতে মটকাতে দুষ্টু হেসে দাশমুন্সি বলেছিলেন,আরে জানি তো,

যেটা আমি পারছি না, সেটা ঠিক ও করে দেবে…

 

আর যেটা চোখ বন্ধ করে সুব্রত মুখোপাধ্যায় বুঝতেন, সেটা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

রাজনীতি…যখন চোখা বাক্যবাণে তৃণমূলনেত্রীকে বিঁধেছেন,তখনও জানতেন প্রতিক্রিয়া কি

হবে| আবার যখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে দাঁড়িয়ে যুদ্ধ পরিচালনা করেছেন,তখনও

বুদ্ধিমান রাজনীতিক জানতেন একদা তাঁর অনুগামী,পরবর্তীকালে তাঁর নেত্রী কি চান…

 

এখন মনে হচ্ছে,আসলেই সুব্রত মুখোপাধ্যায় জুটিতে, মানে ডাবলসে অসাধারণ

খেলতেন…রাজনৈতিক জীবনের প্রথম অর্ধে গুরু প্রিয়র সঙ্গে তো, শেষ ২০ বছর একদা

শিষ্যা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জেনারেল হিসাবে…

 

সেখানেও তাঁর শিরোস্ত্রাণে কি সব অসাধারণ পালক| তৃণমূলের সেরা মেয়র থেকে মমতা

মন্ত্রিসভার প্রথম দুই দফায় সেরা পারফর্মিং মিনিস্টার| মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূলস্তর পর্যন্ত

যেভাবে সরকারের কাজকর্মকে পৌছে দিতে চেয়েছেন, তার জন্য তো সুব্রত মুখোপাধ্যায়

পঞ্চায়েতমন্ত্রী হিসেবে একেবারে রাহুল দ্রাবিড়ের মতো মিস্টার ডিপেন্ডেবল ছিলেন|

মেয়র হিসেবে তাঁর পারফর্ম্যান্সকে সবাই এত নম্বর দেন,এমনকি বিরোধীরাও, যে মনে

হতে পারে সর্বভারতীয় রাজনীতিতে গেলে তিনি হয়তো স্কোরবোর্ডে আরও অনেক সেঞ্চুরি

রেখে যেতেন| স্বভাবরসিক, ঠোঁটকাটা সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে একেবারে একান্তে কথা বলে

কিন্তু আমার কখনও মনে হয়নি,এই নিয়ে তাঁর কোনও আফশোষ ছিল…

একটু অসুস্থ শুনে দেখা করতে গেছি, এ কথা সে কথার পর প্রশ্ন করলাম, বয়সের তুলনায়

কি একটু বেশি পরিশ্রম হয়ে যাচ্ছে?

উত্তর এল, শোন, প্রিয় দা অসুস্থ হয়ে পড়ার পর কংগ্রেস ছাড়লাম, তারপর থেকে তো আমি

আর কোনও দল করি না| শুধু মমতা যেটা বলে, সেটা অক্ষরে অক্ষরে করি| ক্যাপ্টেন

যেভাবে বলবে, সেইভাবে রান করব, স্কোরবোর্ডকে সচল রাখব,এটাই তো ভাল

ব্যাটসম্যানের কাজ রে…

বিদায় মিস্টার ডিপেন্ডেবল| মিস্টার পারফর্মার…

এতক্ষণে নিশ্চয়ই আপনি, প্রিয়রঞ্জন আর সোমেন মিত্র মিলে জমিয়ে আড্ডা শুরু করে

দিয়েছেন…

Previous articleদেশে সংক্রমণের হার নিম্নমুখী !
Next articleসুব্রত মুখোপাধ্যায় ও কংগ্রেসের কঙ্কাল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here